1. admin@doinikkhobor24.com : admin :
শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০৪:৫৪ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।  
শিরোনাম :
করোনার টিকা নিলেন কালিয়াকৈর পৌরসভার সম্ভাব্য মেয়র পদপ্রার্থী রফিকুল ইসলাম তুষার গাজীপুর মহানগরের ৪৯ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পদে মোঃ ফজল করিমকে দেখতে চায় ওয়ার্ডবাসী এইচ টি ইমাম চলে গেলেন না ফেরার দেশে গাজীপুর মহানগরের কুনিয়া তারগাছ এলাকার বৃদ্ধা জমিলা খাতুনের খুনের পলাতক আসামীকে গ্রেফতারের দাবী কক্সবাজার ইনডোর স্টেডিয়ামের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল ঝালকাঠি পুলিশ সুপার ফাতিহা ইয়াসমিন নিজের অর্থদিয়ে অসহায় শিশুর চোখের ছানি অপারেশন মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে দলীয় কোন্দলের জেরে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা আগামীকাল সোমবার থেকে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন চত্বরে মাসব্যাপী মেলা ও লোকজ উৎসব গাজীপুরে পুবাইলে অটোরিকশা চালক হত্যা মামলার প্রধান আসামী গ্রেফতার ছাগলনাইয়া প্রেস ক্লাবের নির্বাচনে সভাপতি শেখ কামাল, সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম নির্বাচিত

ইতালি প্রবাসী ছেলে কে দেখিয়ে পিতা-মাতার প্রতারণা বানিজ্য

  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৯৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এস এম মনিরঃ ছেলে জিসান ইতালি প্রবাসী। ছেলে কে দেখিয়ে বাংলাদেশে বসবাসরত মা বাবা এক ভয়ংকর প্রতারণার ফাঁদ পেতে বসেছে।

মতিঝিল পিএনটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা পারভীন আক্তার ও তার স্বামী হারুন অর রশিদ বেকার যুবক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ইতালি প্রেরণের প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন।
খিলগাঁও আমানুল্লাহ সুপার মার্কেটের জসিম নামে এক খুদ্র ব্যবসায়ী তাদের এই প্রতারণার ফাঁদে পরে নিঃস্ব হয়ে আমাদের কাছে অভিযোগ করেছেন।
ভুক্তভোগী জসিম বলেন আমি খিলগাঁও রেল গেইট আমান উল্লাহ সুপার মার্কেটে কসমিটিকের ব্যবসা করি। পারভীন আক্তার আমার দোকানের একজন কাস্টমার ছিলো, সেই সুবাদে তার সাথে আমার পরিচয়। পারভীন আক্তারের ছেলে জিসান ইতালি প্রবাসী। সে আমাকে জিসানের মাধ্যমে বৈধ ভাবে ইতালিতে প্রেরণের প্রলোভন দেখায়। যেহেতু আমি মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান তাই ভবিষ্যৎ সুখের চিন্তা করে এবং আমার পরিবার আর্থিক ভাবে সুখে শান্তিতে থাকবে এই প্রত্যাশায় আমি আমার সর্বস্ব নষ্ট করে গত ২২/১১/২০১৮ইং তারিখ হইতে ১২/৮/২০১৯ ইং তারিখ পর্যন্ত মোট ৩৬৫০০০/=নগদে ও ব্যাংকের মাধ্যমে প্রদান করি। উক্ত টাকা গ্রহণের পর আমাকে ইতালিতে প্রেরণ করার কথা বললে সে কালক্ষেপণ করিতে থাকে। এক পর্যায়ে সে আমাকে বলে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে তোমার ইতালিতে যাওয়ার সকল কাগজপত্র রেডি হয়ে চলে আসবে। তুমি আরো ৮,৮৫,০০০/-টাকা রেডি করে রাখো। সে একজন আদর্শ শিক্ষক মনে করে আমি সরল বিশ্বাসে আমার জায়গায় জমি বিক্রি করে উক্ত ৮,৮৫,০০০/-টাকা আমি রেডি করি।কিন্তু আমাকে ইতালি প্রেরণের নির্ধারিত সময় অতিবাহিত হয়ে গেলেও সে আমার সাথে আর কোন যোগাযোগ রক্ষা করে নাই। আমি নিরুপায় হয়ে তার সাথে যোগাযোগ করলে সে বলে আমাকে বিদেশ পাঠাবে না এবং আমার টাকাও ফিরত দিবে না। আমি তার কাছে আমার টাকা ফিরত চাইলে সে বিরুদ্ধে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৎকালীন জনাব ওয়াহিদুল হাসান মিল্টন সাহেবের নিকট অভিযোগ প্রদান করে। কমিশনার সাহেব ৬/৯/২০১৯ইং তারিখে আমাদের তলব করলে আমি সেখানে উপস্থিত হলেও তারা কেউ সেদিন আসেনি। আমাকে টাকা ফিরত না দিয়ে আমাকে চুপ রাখার জন্য বিভিন্নভাবে হুমকি, ভয়ভীতি প্রদর্শন সহ আমার বিরুদ্ধে খিলগাঁও থানায় নারী নির্যাতনের সাধারণ ডাইরী করেন। এবং আমাকে সে জানান আমি যদি তার কাছে টাকা দাবি করি তাহলে নারী নির্যাতনের মামলা দিয়ে আমাকে জেলে পুড়ে মারবে।
আমি আমার টাকা ফিরত পাওয়ার আশায় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ডি জি মহদোয় বরাবর আবেদন করেও তার কোন প্রতিকার পাইনি।
আমি এই প্রতারক পারভীন ও তার স্বামী হারুন রশীদের বিচার চাই ও আমার কষ্টার্জিত টাকা ফিরত চাই।
ভিকটিম জসিম উদ্দিনের অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্ত পারভীন কে না পেয়ে তার স্বামী হারুন উর রশীদের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন এই টাকা জসিমের কাছে তার ছেলে জিসান পাইতো, তা জসিম পরিশোধ করছে।এটা বলে ফোন রেখে দেয়।

অনুসন্ধানে জানা যায় যে সহকারী শিক্ষিকা পারভীন আক্তার ও স্বামী হারুন উর রশিদ ইতালি প্রবাসী ছেলে জিসান কে সাইনবোর্ড হিসাবে ব্যবহার করে একাধিক যুবক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর সাথে প্রতারণা করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। পারভীন আক্তার চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়েও একাধিক প্রতারণার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সরজমিনে অনুসন্ধান করে দেখা যায় পারভীন আক্তার সাধারণ একজন সহকারী শিক্ষক হওয়ার পরেও ইতিমধ্যেই মাদারটেক একটি আলিসান ফ্ল্যাট ক্রয় করেছেন যার মুল্য প্রায় ৭০/৮০ লক্ষ টাকা।
প্রাথমিক অনুসন্ধানে আরো জানা যায় পারভীন আক্তারের স্বামী হারুন অর রশিদ মিটফোর্ডে অনুমোদন হীন ভূয়া মেডিসিন বাজারজাতের মাধ্যমে কোটি কোটি হাতিয়ে নিয়েছে।
প্রশ্ন হলো এই দম্পতি প্রতারণা মাধ্যমে একাধিক অপরাধ করার পরও কেনো এদের কে আইনের আওতায় আনা যাচ্ছে না? তাহলে এদের পিছনে কি এমন অদৃশ্য শক্তি?

অনুসন্ধান চলছে….
বিস্তারিত জানতে চৌখ রাখুন অনুসন্ধানে

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
March 2021
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
232425262728  

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2020
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It